×
×
×

হযরত মুহাম্মাদ (সা)এর ওফাত ও তাঁর প্রাসঙ্গিক বিষয়াবলি

সন ১১ হিজরী ২৮শে সফর রোজ সোমবার রাসুল (সা.) ওফাত পান। ওফাতকালে তাঁর বয়স ছিল ৬৩ বছর। ৪০ বছর বয়সে তিনি আল্লাহর নির্দেশে স্বীয় নবুওয়াতকে প্রকাশ করেন। নবুওয়াত প্রাপ্তির পরে ৫৩ বছর বয়সে তিনি মদীনায় হিজরত করেন এবং সেখানে তিনি ১৩ বছর জীবন যাপন করেন। তিনি ১১ হিজরীতে ওফাত পাওয়ার পরে হযরত আলী (আ.) তাঁকে গোসল দেন, কাফন পরান এবং জানাযার নামাজ পড়ান।

সন ১১ হিজরী ২৮শে সফর রোজ সোমবার রাসুল (সা.) ওফাত পান। ওফাতকালে তাঁর বয়স ছিল ৬৩ বছর। ৪০ বছর বয়সে তিনি আল্লাহর নির্দেশে স্বীয় নবুওয়াতকে প্রকাশ করেন। নবুওয়াত প্রাপ্তির পরে ৫৩ বছর বয়সে তিনি মদীনায় হিজরত করেন এবং সেখানে তিনি ১৩ বছর জীবন যাপন করেন। তিনি ১১ হিজরীতে ওফাত পাওয়ার পরে হযরত আলী (আ.) তাঁকে গোসল দেনকাফন পরান এবং জানাযার নামাজ পড়ান। অতঃপর লোকজন একে একে আসে এবং এককভাবে জানাযার নামাজ আদায় করে। যেই ঘরে রাসুল (সা.) মৃত্যুবরণ করেন সে ঘরেই ইমাম আলী  (আ.) তাঁকে দাফন করেন। আনাস ইবনে মালেক (রা.) থেকে রেওয়ায়েত বর্ণিত হয়েছে যেআমরা রাসুল (সা.)এর পবিত্র দেহকে দাফন করার পরে হযরত ফাতিমা যাহরা (সা.আ.) আমার কাছে এসে বলেন: হে আনাস! আপনি কিভাবে আমার বাবাকে দাফন করতে পারলেনঅতঃপর তিনি ক্রন্দন করে বলেছিলেন:

يَا اَبَتاهُ اَجابَ رَبّا دَعاهُ            يَا اَبَتاهُ مِنْ رَبِّهِ مَا اَدْناهُ      الخ و لَنِعْمَ مَاقيلَ

বিশ্বস্ত সূত্রে হযরত ফাতিমা যাহরা (সা.আ.) রাসুল (সা.)এর কবর থেকে সামান্য মাটি নিয়ে নিজের চোখে লাগিয়ে বলেছিলেন:

مَا ذَا عَلَى الْمُشْتَمِّ تُرْبَةَ أَحْمَدَ        أَنْ لا يَشَمَّ مَدَى الزَّمَانِ غَوَالِيَا

صُبَّتْ عَلَيَّ مَصَائِبُ لَوْ أَنَّهَا        صُبَّتْ عَلَى الْأَيَّامِ صِرْنَ لَيَالِيَا.

মহানবী (স.) এর জীবনের শেষ দিনগুলি:

আল্লাহর রাসূল (সা.) তাঁর অসুস্থতা গুরুতর হওয়ার পূর্বের রাতে হযরত আলী (আ.) এর হাত ধরে এক দল লোকের সাথে জান্নাতুল বাক্বি কবরস্থানে যান। সেখানে তিনি কবরে শায়িতদের উদ্দেশ্যে সালাম প্রেরণ করেন অতঃপর তাদের জন্য দীর্ঘক্ষণ ধরে এসতেগফার পাঠ করেন। অতঃপর হযরত আলী (আ.) কে বললেন: জিব্রাইল প্রতি বছর একবার করে পরিপূর্ণ কুরআন আমার উদ্দেশ্যে অবতীর্ণ হতেনকিন্তু এ বছর দুবার এ ঘটনা ঘটেছে। আর এ বিষয়টির মাধ্যমে আমার মৃত্যুর সময় ঘনিয়ে আসা ব্যতীত আর কিছুই বোঝায় না।

অতঃপর আলী (আ.) কে বললেন : আমি যদি দুনিয়া হতে বিদায় নিই তবে তুমি আমাকে গোসল দিবে

অন্য এক রেওয়ায়েতে বর্ণিত হয়েছে যেতিনি বলেছিলেন : কাউকে আমি যদি কোন প্রতিশ্রুতি দিয়ে থাকি তবে তার উচিত আমার নিকট এসে তা চাওয়াআমি যদি কারো নিকট ঋণী থাকি তবে সে যেন আমাকে সে সম্পর্কে অবগত করে।

কিছু কিছু স্ত্রী ও সাহাবাদের অবাধ্যতা ও বিরূপ আচারণে অতিষ্ঠ মহানবী (সা.) বিদআতের পথ রুখতে বলেছিলেন: হে লোক সকল! ফেতনার আগুন প্রজ্বলিত হয়েছেফেতনাসমূহ আঁধার রাতের ন্যায় আবির্ভূত হয়েছে। আমার বিপক্ষে তোমাদের নিকট কোন দলীলই নেইকেননা কুরআন যা কিছু হালাল করেছে তা ব্যতীত আমি কোন কিছুকেই হালাল করিনি এবং কুরআন যা কিছু হারাম করেছে তা ব্যতীত আমি কোন কিছুকেই হারাম করিনি

মহানবী (স.) এ বিষয়ে সতর্ক করে দেয়ার পর উম্মু সালামাহ’ (রা.) বাড়ীতে গেলেন এবং সেখানে দুদিন অবস্থান করলেন। তিনি বললেন: হে আল্লাহ! তুমি সাক্ষী থেকো আমি সত্য বিষয়াদির প্রচার করেছি।

অতঃপর মহানবী (সা.) স্বীয় বাড়ীতে গেলেন এবং একটি দলকে তলব করে বললেন: আমি কি তোমাদেরকে উসামার সৈন্যদলে যোগ দান করার নির্দেশ দেয়নিকেন তোমরা যাওনিহযরত  আবু বকর বললেন: গিয়েছিলামকিন্তু আপনার সাথে পূনরায় সাক্ষাতের জন্য এসেছি। হযরত  উমর বললেন: অন্য কাফেলার লোকদের নিকট হতে আপনার শারীরিক অবস্থার খবরা-খবর জিজ্ঞাসা করা পর্যন্ত ধৈর্য্যধারণ পারিনি।

নির্দেশ অমান্য করায় রাসূল (সা.) অত্যন্ত অসন্তুষ্ট হলেন এবং সে অসুস্থ অবস্থাতেই তিনি মসজিদে গিয়ে অভিযোগকারীদের উদ্দেশ্যে বললেন: উসামার নেতৃত্বের বিষয়ে এ সব কি মন্তব্য আমি শুনছি। তোমরা এরপূর্বেও তার পিতার নেতৃত্বকে কটাক্ষ করেছো। আল্লাহর কসম সে সৈন্যদলের নেতৃত্ব দানের ক্ষেত্রে যোগ্য ছিল এবং তার পুত্র উসামাও এ কাজের জন্য যোগ্য। মহানবী (সা.) অসুস্থ অবস্থাতেই তার সাথে দেখা করতে আসা লোকদের উদ্দেশ্যে বারংবার বললেন উসামার সৈন্য দলকে রওনা করো। তিনি এখানে উসামার সৈন্য দলে যোগ দান করার বিষয়ে অবাধ্যদের প্রতি অভিসম্পাত করেছেন।

অতঃপর তিনি জ্ঞান হারালেনএমতাবস্থায় সকল নারী ও শিশুরা ক্রন্দন করছিলো। কিছুক্ষণ পর মহানবী (সা.)-এর জ্ঞান ফিরে এল। তিনি নির্দেশ দিলেন কলম এবং দোয়াত এনে দেওয়ার জন্যযাতে তিনি তাতে এমন কিছু লিখে দেবেন যেপরবর্তীতে তোমরা কখনই গোমরাহ ও পথভ্রষ্ট হবে না। এ সময় তাদের মধ্যে কিছু লোক উঠে কলমকাগজ ও দোয়াত আনতে চলে গেল। হযরত  উমর বললেন: মহানবী (স.) এর অসুস্থতা তীব্র আকার ধারণ করেছে, ((إرجع فإنه یهجر)) ফিরে এসোকেননা তিনি ভুল বকছেন [নাউজুবিল্লাহ]। তোমাদের নিকট কুরআন রয়েছেতোমাদের জন্য আল্লাহর কিতাবই যথেষ্ট।

উপস্থিতদের কিছু হযরত  উমরের কথার বিরোধিতা করলেন এবং কয়েকজন তার কথার সমর্থন করলো। মহানবী (সা.) তাদের মতানৈক্য ও ঔদ্ধত্যপূর্ণ কথাবার্তায় অসন্তুষ্ট হয়ে বললেন : ওঠো এবং আমার নিকট হতে দূর হয়ে যাও

শেষ মুহূর্তে রাসুল (স.) এর ওসিয়ত:

অন্যান্যদের উপস্থিতিতে মহানবী (সা.) আলী (আ.) এর দিকে তাকালেন এবং তার উদ্দেশ্যে ওসিয়ত করতে চাইলেনবললেন: কাছে এসো। অতঃপর তিনি নিজের যেরা (যুদ্ধের সময় ব্যবহৃত ইস্পাতের তৈরী জামা)তলোয়ারআংটি ও মোহর হযরত  আলী (আ.) কে দিয়ে বললেন: বাড়ীতে যাও। এর কিছুক্ষণ পর তাঁর অসুস্থতা তীব্র আকার ধারণ করলো। তিনি পূনরায় স্বাভাবিক হওয়ার পর আলী (আ.) কে কাছে না পেয়ে স্ত্রীদের উদ্দেশ্যে বললেনদ: আমার ভাই ও সহচর কোথায়। তারা হযরত  আবু বকরকে ডেকে পাঠালেন। তিনি আসলে মহানবী (সা.) পূনরায় একই বাক্য পূনরাবৃত্তি করলেন। অতঃপর তারা হযরত  উমরকে ডেকে নিয়ে এলেন। কিন্তু মহানবী (সা.) আবার বললেন : আমার ভাই ও সহচর কোথায়। উম্মু সালামাহ বললেন : তিনি আলীকে খোঁজ করছেনতাকে আসতে বলো। আলী (আ.) আসলেনঅতঃপর তারা দুজনে কানে কানে কিছুক্ষণ কথা বললেন। যখন আলী (আ.) কে জিজ্ঞাসা করা হল যেমহানবী (সা.) কি বলেছেন?

তিনি উত্তরে বললেন: আমাকে তিনি জ্ঞানের ১০০০টি অধ্যায়ের শিক্ষা দিয়েছেন এবং প্রতিটি অধ্যায় হতে আমার জন্য ১ হাজারটি অধ্যায় উন্মুক্ত হয়েছে। আর আমাকে কিছু কাজের কথা বলেছেনযেগুলোকে আমি অবশ্যই সম্পাদন করব। ঐ অবস্থায় মহানবী (সা.) কয়েকবার বললেন:

ما ظن محمد بالله لو لقی الله و هذه عذره عنده

জীবনের শেষ দিনগুলির একটিতে তিনি মুসলমানদেরকে মসজিদে উপস্থিত হওয়ার লক্ষ্যে আহবান জানানোর জন্য হযরত বিলাল (রা.) কে নির্দেশ দিলেন। তিনি জনগণের উদ্দেশ্যে বললেন: তিনি যদি কারো নিকট ঋণী থাকেন তবে তারা যেন দাবী করে। মহানবী (সা.) এ কথার কেউ কোন উত্তর দিল নাতিনি এ কথাকে তিনবার পূনরাবৃত্তি করলেন। এমন সময় ভীড়ের মধ্য হতে উক্কাশাহ’ নামক এক গোলাম (দাস) উঠে দাঁড়িয়ে নিজের অধিকার দাবী করলো। মহানবী (সা.) হতে প্রতিশোধ গ্রহণের জন্য একটি চাবুক প্রস্তুত করলোকিন্তু প্রতিশোধ নেওয়ার সময় প্রতিশোধ নেওয়ার পরিবর্তে হযরত মুহাম্মাদ (সা.) কে জড়িয়ে ধরে ক্রন্দন শুরু করলো এবং তাঁকে ক্ষমা করে দিল। মহানবী (সা.) বললেন : সে বেহেশতে আমার বন্ধু হবে।

অতঃপর তিনি হযরত আলী (আ.) কে নির্দেশ দিলেন তাঁর এক স্ত্রীর নিকট বিদ্যমান অর্থ দরিদ্রদের মাঝে বিতরণ করার জন্য।

ফাতিমার (সা. আ.) বাবার সাথে শেষ বিদায়:

আল্লাহর রাসূল (সা.) এর জীবনের শেষ মুহূর্তে হযরত ফাতিমা (সা. আ.) অত্যাধিক ক্রন্দন করছিলেন। তাঁকে কাছে ডেকে তিনি (সা.) কিছু বললেন। ফাতিমা (সা. আ.) আরো তীব্রভাবে ক্রন্দন শুরু করলেন। তিনি (সা.) আবার ফাতিমা (সা. আ.) কে পূনরায় কিছু বললেন। এবার তিনি মুচকি হাসলেন। পরবর্তীতে তাঁকে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেন : প্রথমে আল্লাহর রাসূল (সা.) বলেছিলেন: এ ব্যাথাতেই আমার মৃত্যু হবে। তিনি মুচকি হাসার কারণ এভাবে বলেন যেতিনি আমাকে বলেছিলেন: আমার আহলে বাইতের মধ্যে তুমিই সর্বপ্রথম ব্যক্তি যে আমার সাথে মিলিত হবে’ এ কারণেই আমি মুচকি হেসেছিলাম।

মহানবী (সা.) পার্থিব জীবনের শেষ মুহূর্তগুলো অতিক্রম করার সময় তার মাথা হযরত আলী (আ.) এর কোলে ছিল।

রাসুল  (সা.) এর কাফন ও দাফনকার্য:

মহানবী (সা.) এর ইন্তিকালের পর দ্বিতীয় খলিফা কোন কারণে বাড়ীর বাইরে এসে চিত্কার করছিলেন যেনবী (সা.) ইন্তিকাল করেননি বরং তিনি হযরত ঈসা (আ.) এর মত তিনি আল্লাহর নিকট চলে গেছেন। এমন সময় সাহাবীদের মধ্য হতে একজন এ আয়াতটি তেলাওয়াত করলেন:

وَ ما مُحَمَّدٌ إِلاَّ رَسُولٌ قَدْ خَلَتْ مِنْ قَبْلِهِ الرُّسُلُ أَ فَإِنْ ماتَ أَوْ قُتِ

হযরত  আলী (আ.)হযরত মুহাম্মাদ (সা.) এর পবিত্র দেহ মোবারকের গোসল দিয়েছিলেন। কেননা মহানবী (সা.) নিজেই ওসিয়ত করেছিলেন যেতাঁর সবচেয়ে নিকটতম ব্যক্তি যেন তাকে গোসল দেয়।

আর ঐ ব্যক্তি আলী (আ.) ব্যতীত আর কেউ ছিল না। অতঃপর তার মুখমণ্ডল উন্মুক্ত করলেন এ সময় তাঁর দুচোখ বেয়ে অঝোরে অশ্রু ঝরছিল। তিনি (আ.) বললেন: হে আল্লাহর রাসূল (সা.)! আমার পিতামাতা আপনার উপর উৎসর্গ হোক। আপনার ওফাতের মাধ্যমে নবুয়্যাতঐশী ওহী ও আসমানী সংবাদের সিলসিলা কর্তিত হল… আপনি যদি আমাদেরকে ধৈর্যধারণের নির্দেশ না দিতেন তবে এত ক্রন্দন করতাম যেআমাদের অশ্রুর উৎস শুকিয়ে যেত।

অতঃপর তাঁরই শয়নকক্ষে আবু উবাইদাহ জাররাহ’ ও যায়েদ বিন সাহল’ কর্তৃক প্রস্তুতকৃত কবরে তাঁর পবিত্র দেহ মোবারক দাফন করা হয়।

लाइक कीजिए
0
फॉलो अस
नवीनतम
ইমাম রেজার (আ.)এর শাহাদাত-বার ...

হযরত ইমাম রেজার (আ.)এর শাহাদাত-বার্ষিকী ২০২০

ইমাম রেজার (আ.)এর রওজা মুবারাক

হযরত ইমাম রেজার (আ.)এর রওজা মুবারাক

করোনার ভয়ে ফ্রান্সের রাষ্ট্রীয ...

করোনার ভয়ে ফ্রান্সের ৯ শহরে ৪ সপ্তাহর কারফিউ জারী

বাংলাদেশে নারীর শ্লীলতাহানী ও ...

বাংলাদেশে ধর্ষণের মহোৎসব চলছে: মির্জা ফখরুল

ইমাম হুসাইন (আ.)এর মাথা কোথায়

ইমাম হুসাইন (আ.)এর মাথা কোথায় দাফন করা হয়?

আইআরজিসি সদস্যদের হত্যার মূল ক ...

ইরানে এক অভিযানে কয়েকটি সন্ত্রাসী আটক

যিয়ারত- এ আরবাইন আরবী ও বাংলা ...

বাংলায় যিয়ারত-এ আরবাঈন

ভারতের গবেষণা প্রতিষ্ঠানগুলো প ...

ভারতের উপরে ইমরান খানের হামলা

ইরাকে মার্কিনদের লক্ষ্য করে হা ...

ইরাকে মার্কিন ঘাঁটিতে রকেট হামলা

ইরান মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে হত্য ...

ইরানের উপরে শক্তিশালী হামলা চালানো হবে: ট্রাম্প

মাস্ক না পরলে সারাদিন কবর খুঁড ...

মাস্ক না পরলেই পাঠিয় দেওয়া হচ্ছে কবরখানায়

ভেনিজুয়েলায় সম্পূর্ণ সতর্কতা

মার্কিন বিমান ভূপাতিত করল ভেনিজুয়েলা

ট্রাম্পকে সাদ্দামের মতো কবরস্থ ...

ইরানের উপর ট্রাম্পের হামলা?

ভারতের পাকিস্তানিদের মৃত্যুর ব ...

ভারতে ১১ পাকিস্তানির রহস্যজনক মৃত্যু