×
×
×

বিজেপি ও আরএসএস-এর মধ্যকার সম্পর্ক

আরএসএসের লক্ষ্য হচ্ছে হিন্দু রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা, সেটা হয়তো এখন দূর অস্ত মনে হতে পারে। কিন্তু মোদির হাতে এখনো সাড়ে তিন বছর সময় রয়েছে। তিনি ও আরএসএস-প্রধান এখন প্রায়ই জনসমক্ষে মিলিত হচ্ছেন। তাঁদের কাজকর্ম দেখে মনে হচ্ছে, তাঁরা নাগপুরে আরএসএস সদর দপ্তরে প্রণীত পরিকল্পনা অনুসারে কাজ করে যাচ্ছেন। বিজেপি ও তার ছাত্রসংগঠন অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদের স্বাধীন চিন্তা নেই, তারা শুধু নাগপুরে রচিত পাণ্ডুলিপি পাঠ করে, আর কিছু নয়।

ভারতে, ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) ও রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের (আরএসএস) মধ্যকার সম্পর্ক নিয়ে যদি কারও মধ্যে বিন্দুমাত্র সন্দেহ থাকেতা হলে নরেন্দ্র মোদি নিজেই সেটা দূর করেছেন। তিনি তাঁর গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রীদের আরএসএস-প্রধান মোহন ভাগওয়াতের সামনে হাজির করে নিজেদের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কার্যক্রম সম্পর্কে তাঁকে অবহিত করতে বলেছেন। এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর অস্বস্তিবোধ নেইপুরো অনুষ্ঠানটি একটি সংবাদ চ্যানেলে সম্প্রচারিত হওয়ায় সেটা বোঝা গেছে। হ্যাঁমোদি আরএসএসের রাজনৈতিক শাখা বিজেপিতে যোগ দেওয়ার আগে প্রথমোক্ত সংগঠনটির উৎসাহী প্রচারক ছিলেন।
 
বিজেপি আরএসএসের সঙ্গে সম্পর্কের ব্যাপারটা লুকিয়ে রাখতে চায়। কারণতারা বোঝেগড়পড়তা ভারতীয়দের মধ্যে আরএসএসের গ্রহণযোগ্যতা নেই। এই প্রশ্নের কারণেই জনতা পার্টি ভেঙে গেছে। বিজেপির পূর্ববর্তী রূপ জন সংঘ জনতা পার্টিতে যোগ দেওয়ার আগে আরএসএসের সঙ্গে সম্পর্ক ত্যাগ করার অঙ্গীকার করেছিল। তারা গান্ধীবাদী জয়প্রকাশ নারায়ণকে কথা দিয়েছিলজনতা পার্টিতে ঠাঁই পেলে তারা আরএসএসের সঙ্গ ত্যাগ করবে। কিন্তু বাস্তবে এই সম্পর্ক ত্যাগের ব্যাপারটা ঘটেনিতারা জয়প্রকাশ নারায়ণের বিশ্বাস ভঙ্গ করেছিল।

মনে পড়েআমি জয়প্রকাশ নারায়ণকে জিজ্ঞেস করেছিলামতিনি কেন আরএসএসের সঙ্গে সম্পর্ক ত্যাগ না করা সত্ত্বেও জন সংঘকে জনতা পার্টিতে স্থান দিয়েছিলেন। উত্তরে তিনি বলেছিলেনজন সংঘ কথা না রেখে তাঁর সঙ্গে প্রতারণা করেছিল।

এট নিশ্চয়ই সত্য হবেকিন্তু এ প্রক্রিয়ায় জন সংঘ ধর্মনিরপেক্ষ ভাবমূর্তি পেয়েছিল। জয়প্রকাশ যে গুরুতর ভুল করেছিলেনতার জন্য জাতিকে বড় মূল্য দিতে হয়েছেআর গতকালের জন সংঘ আজ বিজেপি হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেলোকসভায় একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে।

এই পরিস্থিতি থেকে কংগ্রেসের লাভবান হওয়া উচিত ছিল। কিন্তু পরিবারতন্ত্র নিয়ে দলটির আচ্ছন্নতা এবং রাহুলকে নিজের উত্তরসূরি বানানোর ব্যাপারে সোনিয়া গান্ধীর পীড়াপীড়ির কারণে তারা এ সুযোগ হারিয়েছে। মুসলমানরা দলটির নির্ভরযোগ্য ভোটব্যাংক ছিলদলটি তাদের হারিয়েছে। সমাজ এখন আঞ্চলিক দলগুলোর ওপর নির্ভর করতে শুরু করেছেএমনকি ওয়াসিকে সমর্থন করার চিন্তাও নাড়াচাড়া করছে। ওয়াসি নিজেকে মুসলমানদের একমাত্র প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থাপন করার চেষ্টা করছেনঠিক যেমন দেশভাগের আগে মুসলিম লীগ চেষ্টা করেছিল। সমাজ সংকীর্ণ রাজনীতির কাছে ফেরত যেতে চায় না।
 
যা হোকটেলিভিশনের পর্দায় যখন লোকে দেখল আরএসএস-প্রধান মোহন ভাগওয়াতের সামনে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নিজের মন্ত্রীদের হাজির করেছেনতখন বোঝা গেলনেতা কে। এটা সত্য যে ভোটাররা মোদিকে সংখ্যাগরিষ্ঠতা দিয়েছেকিন্তু নির্বাচনী প্রচারণার সময় তিনি কখনো বলেননিদেশশাসনের বেলায় আরএসএসও তাদের সঙ্গে থাকবে।

সত্য হলোনির্বাচনী প্রচারণার সময় মোদি সংখ্যালঘুদেরবিশেষ করে মুসলমানদের আশ্বস্ত করেছিলেনইতিপূর্বে পার্টির অবস্থান যা হোক না কেননতুন স্লোগান হবেসব ক্যা সাথসব ক্যা বিকাশ। কিছু জনসভায় তিনি একটু ভিন্নপথে গিয়ে বলেছিলেনতিনি মুসলমানদের সবচেয়ে ভালো রক্ষক হবেন।

সত্যি কথা বলতেএখন পর্যন্ত তাঁর কাজের মধ্যে বৈষম্যমূলক কিছু দেখা যায়নি। যদিও এটা দৃশ্যমান যে আরএসএস শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে গেরুয়াকরণ করছে আর গুরুত্বপূর্ণ পদগুলোতে নিজেদের লোক বসাচ্ছে। এতে বোঝা যায়মোদি খুব ধীরগতিতে ও অবিশ্রান্তভাবে আরএসএসের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছেন। এটাও পরিষ্কার যে শাসনব্যবস্থায় মুসলমানদের ভূমিকা আর নেই। কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় মাত্র একজন মুসলমান মন্ত্রী আছেনতা-ও আবার গুরুত্বহীন মন্ত্রণালয়ে। তা ছাড়াসরকারের ভেতরে ও বাইরে এমন ধারণা আছে যে শাসনব্যবস্থায় একরকম মৃদু হিন্দুত্ব কায়েম হয়েছে।

আরএসএসের লক্ষ্য হচ্ছে হিন্দু রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করাসেটা হয়তো এখন দূর অস্ত মনে হতে পারে। কিন্তু মোদির হাতে এখনো সাড়ে তিন বছর সময় রয়েছে। তিনি ও আরএসএস-প্রধান এখন প্রায়ই জনসমক্ষে মিলিত হচ্ছেন। তাঁদের কাজকর্ম দেখে মনে হচ্ছেতাঁরা নাগপুরে আরএসএস সদর দপ্তরে প্রণীত পরিকল্পনা অনুসারে কাজ করে যাচ্ছেন। বিজেপি ও তার ছাত্রসংগঠন অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদের স্বাধীন চিন্তা নেইতারা শুধু নাগপুরে রচিত পাণ্ডুলিপি পাঠ করেআর কিছু নয়।

এর আবার নানা রকম বহিঃপ্রকাশ আছে। কখনো কখনো সেটা মাংসের ওপর নিষেধাজ্ঞা রূপে হাজির হয়কখনো পোশাক বিধান এবং কখনো বিদ্যালয়ে সংস্কৃত শিক্ষা ও কখনো সেখানকার অ্যাসেম্বলিতে সকালের বিশেষ প্রার্থনা বাধ্যতামূলক করার মধ্য দিয়ে তার প্রকাশ ঘটে। দিল্লির নেহরু স্মৃতি জাদুঘর সংস্কার করার সিদ্ধান্তও এর একটি অংশ। ব্রিটিশ তাড়ানোর আন্দোলনে যেখানে আরএসএসের টিকিটি পর্যন্ত দেখা যায়নিসেখানে এখন তারা সব স্থান দখল ও নিজেদের স্বাধীনতার চ্যাম্পিয়ন হিসেবে প্রদর্শন করতে চায়।

স্বাধীনতাসংগ্রামের ও বহুত্ববাদের দর্শনের প্রতি আবেগের ঘাটতি দেখে মনোবেদনা সৃষ্টি হয়। এমনকি আধুনিক ভারতের স্থপতি জওহরলাল নেহরুর নাম পর্যন্ত সুনির্দিষ্টভাবে মুছে ফেলার চেষ্টা করা হচ্ছেযেমন এরা নেহরু ও ইন্দিরা গান্ধীর ছবি ডাকটিকিট থেকে মুছে ফেলছে। শিক্ষা খাতের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এরা ইতিহাস বিকৃতির চেষ্টা করছেপাঠ্যবই নতুন করে লিখছে। সেখানে স্বাধীনতাসংগ্রামের গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের ভূমিকা খাটো করা হচ্ছে। ফলে এতে বিস্ময়ের কিছু নেই যে সীমান্ত গান্ধী খান আবদুল গাফফার খান ও মাওলানা আবুল কালাম আজাদের মতো যে নেতারা মুসলিম লীগের বিরুদ্ধে সাহস নিয়ে দাঁড়িয়েছিলেনতাঁদের নাম আর তেমন একটা উচ্চারণ করা হয় না।

আসল ব্যাপারটা বোধগম্যস্বাধীনতাসংগ্রামের কথা বললে আরএসএস ও তার সদস্য বিজেপি ও বজরঙ্গি দল বিচ্ছিন্ন বোধ করে। কিন্তু স্বাধীনতাসংগ্রামকে খাটো করা তাদের উচিত হবে নাসেটা আগামী প্রজন্মের জন্য বড় রকম ক্ষতির কারণ হবে। গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার হচ্ছে স্বাধীনতাসংগ্রামআর তার জন্য যে অসংখ্য মানুষ ত্যাগ স্বীকার করেছেসেই মানুষেরা।

ইংরেজি থেকে অনুবাদপ্রতীক বর্ধন

কুলদীপ নায়ার: ভারতীয় সাংবাদিক।

लाइक कीजिए
0
হায়দরাবাদ ভাগ্যনগর হবে না কেনঃ যোগীএবার হায়দরাবাদের নাম পরিবর্তন করবে বিজেপি
ওরা দলিতদের ওপর কখনও সংখ্যালঘুর আবার কখনও আদিবাসীদের ওপর অত্যাচার করেধর্ষিত দলিত নির্যাতিতার দেহ পুড়িয়ে দেওয়া হল: বিজেপিকে নিন্দা মমতার
পশ্চিমবঙ্গকে ‘গুজরাট’ বানানোর অঙ্গীকার দিলীপেরপশ্চিমবঙ্গকে ‘গুজরাট’ বানাবে দিলিপ
ভারতে ‘লাভ জিহাদ’ বিরোধী অধ্যাদেশ কার্যকরউত্তর প্রদেশে ‘লাভ জিহাদ’ বিরোধী অধ্যাদেশ কার্যকর
फॉलो अस
नवीनतम
জার্মানিকে জারিফের হুমকি

এবার ইউরোপকে ইরানের হুমকি

আয়াতুল্লাহ জাফার আল হাদির মারা ...

ইরানের আয়াতুল্লাহ জাফার আল হাদির ইন্তেকাল

বিশ্বকে ইসরাইলের বিরুদ্ধে রুখে ...

জাতিসংঘে ইসরাইলের বিরুদ্ধে ইরানের চিঠি

হায়দরাবাদ ভাগ্যনগর হবে না কেন ...

এবার হায়দরাবাদের নাম পরিবর্তন করবে বিজেপি

বিজ্ঞানী হত্যার ঘটনায় ইসরাইলের ...

বিজ্ঞানী হত্যার ঘটনায় ইসরাইলের হাত আছে: ইরান

ইরানের সমর্থনে পাকিস্তান

এবার ইরানের সমর্থনে পাকিস্তান

ভারতে আবার ও ঘূর্ণিঝড়

ভারতে আবার ও ঘূর্ণিঝড়ের তান্ডব

পশ্চিমবঙ্গকে ‘গুজরাট’ বানানোর ...

পশ্চিমবঙ্গকে ‘গুজরাট’ বানাবে দিলিপ

সুদানে নৌ ঘাঁটি নির্মাণ করছে র ...

এবার সুদানে রাশিয়ার নৌ ঘাঁটি নির্মাণ

হেগের সৌদি দূতাবাসে গুলিবর্ষণ

হল্যান্ডে সৌদি দূতাবাসে গুলিবর্ষণ

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ...

ট্রাম্পকে হারানর পিছনে ছিল ইরান, রাশিয়া না চীন?

ম্যাকরনের বিরুদ্ধে বিশ্বব্যাপী ...

ম্যাকরনের বিরুদ্ধে বিশ্বব্যাপী মুসলমানদের ক্ষোভ

কোন বিপদ ইরানের সীমান্তকে হুমক ...

আজারবাইজান-আর্মেনিয়া নিয়ে ইরানের বড় হুমকি

বাংলাদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ...

বাংলাদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি আবারও বাড়ল

ফ্রান্সে মহানবীকে (সা.) অবমানন ...

মহানবী(সা)কে অবমাননা,বিক্ষোভে উত্তাল ঢাকা

ইমাম হাসান আসকারী (আঃ) এর বাণী

ইমাম হাসান আসকারী (আঃ) এর কিছু অমিয় বাণী

ইসলামী পরিবার

ইসলামী পরিবার

ইমাম রেজার (আ.)এর শাহাদাত

হযরত ইমাম রেজার (আ.)এর শাহাদাত

ইমাম রেজার (আ.)এর শাহাদাত-বার ...

হযরত ইমাম রেজার (আ.)এর শাহাদাত-বার্ষিকী ২০২০

ইমাম রেজার (আ.)এর রওজা মুবারাক

হযরত ইমাম রেজার (আ.)এর রওজা মুবারাক